গুজবে নির্ঘুম রাত কাটলো হবিগঞ্জবাসী

প্রকাশিত: ৮:০০ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৭, ২০২০

গুজবে নির্ঘুম রাত কাটলো হবিগঞ্জবাসী

লন্ডন বাংলা ডেস্কঃঃ
একের পর এক গুজবে নির্ঘুম রাত কাটালেন হবিগঞ্জবাসী। গুজব সৃষ্টিকারি আর বিশ্বাসকারি যেমন রাতভর গুজবের কারণে ঘুমাতে পারেননি, তেমনি তাদের ফোন কলে অতিষ্ঠ হয়ে রাতে চোখের পাতা এক করতে পারেননি সচেতন মহলও। গুজব সৃষ্টিকারীদের এমন কর্মকাণ্ডে বিব্রত স্থানীয় প্রশাসনও।

 

জানা যায়, প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস থেকে বাচতে সারাদেশের সাথে হবিগঞ্জেও বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বিভিন্ন মসজিদ ও বাসা বাড়িতে আযান দেন মুসল্লিরা। কিন্তু সেই আযানের পরপরই বড় ধরণের ভূমিকম্প হবে দাবি করে রাত ১টার দিকে রাস্তায় নেমে আসেন কিছু উশৃঙ্খল প্রকৃতির লোক। নিমেষেই এই গুজব ছড়িয়ে পড়ে প্রতিটি উপজেলা ও প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে।

 

করোনাভাইরাস থেকে বাচার আকুতি জানিয়ে বিশেষ এই আযান ঝড়ের গতিতে ভিন্নখাতে প্রবাহিত হয়ে যায়। গ্রামে গ্রামে শুরু হয়ে যায় আতঙ্ক। মাঝ রাতে ঘুম থেকে উঠে ভুমিকম্প থেকে বাচতে আযানের পাশাপাশি কিছু উশৃঙ্খল প্রকৃতির লোক রাস্তায় নেমে এসে মিছিল শুরু করেন।

 

এতে বিভ্রান্তিতে পড়তে হয় স্থানীয় প্রশাসনকে। শুধু মুসল্লিরাই নয়, বড় ধরণে ভুমিকম্প হচ্ছে এমন গুজবে হিন্দু পাড়ায় পাড়ায়ও মধ্যরাতে শুরু হয় কীর্তন। মাঝরাতে ঘুম থেকে উঠে নগর কির্তন শুরু করে হিন্দু নারী-পুরুষরা। আতঙ্কে কাবু হয়ে পড়েন শিশুসহ সকল বয়সি মানুষ।

 

এদিকে, এ গুজব শেষ হতে না হতেই সিলেট থেকে হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ে নতুন আরেক গুজব। এ গুজবে বলা হয়, সিলেটে একটি বাচ্চার জন্ম হয়েছে। বাচ্চাটি মৃত্যুর ২ মিনিট আগে সবাইকে বলেছে করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে হলে চিনি ছাড়া আদা-চা খেতে হবে। এবার শুরু হয়ে যায় চিনি ছাড়া আদা-চা খাওয়ার ধুম। এভাবেই একের পর এক গুজবে নির্ঘুম রাত কাটে হবিগঞ্জবাসীর।

 

সচেতন মহল বলছে- হবিগঞ্জের মানুষের সরল বিশ্বাসকে পুঁজি করে এক শ্রেণির মানুষ সমাজে বিভিন্ন ধরণের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করে। যখনই দেশের ক্রান্তিকাল আসে, তখনই তারা বিভিন্ন গুজব সৃষ্টি করে দেশের সাধারণ মানুষ ও প্রশাসনকে বিব্রত করে।

 

পরিচয় গোপন রাখার সর্তে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র জানিয়েছে- ইতোমধ্যে গুবজ সৃষ্টিকারি কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তারা বিভিন্ন সময় এমন গুজব সৃষ্টি করেন বলে প্রাথমিকভাবে প্রমাণও পাওয়া গেছে। সঠিক তথ্য যাচাই-বাচাই শেষে খুব দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আর্কাইভ

July 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031