নবীগঞ্জে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত, দূর্ভোগ

প্রকাশিত: ৩:০৭ অপরাহ্ণ, জুন ১৯, ২০২২

নবীগঞ্জে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত, দূর্ভোগ
Spread the love

২১ Views

বুলবুল আহমেদ/নবীগঞ্জঃঃ হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে গত কয়েকদিনের বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে বন্যা পরিস্থিতি বর্তমানে ভয়াবহ রূপ ধারন করছে। উপজেলার দীলবাক ইউনিয়নে অবস্থিত কুশিয়ারা নদীর পানি ডাইকের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ার কারণে হবিগগঞ্জ সহ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামীন জনপথে পানি ডুকে প্রবল বন্যার সৃষ্টি হয়ে ঘর- বাড়ি সহ গরু- ছাগল, স্কুল, মসজিদ, মন্দির তলিয়ে গেছে।

 

দীলবাক ইউনিয়নের কারাখানা, বোয়ালজুর, দরবেশপুর, রঘু-দাউদপুর, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের রমহানপুর, নোয়াহাটি, মোস্তফাপুর, উমরপুর, আগনা, বাউর কাপন, দক্ষিণ গ্রাম, জামারগাও, কসবা সহ প্রায় ৩৫ থেকে ৪০টি গ্রামে পানি ডুকে পড়েছে। এতে, ঐ এলাকার রাস্তায় চলাচলকারী বিভিন্ন গাড়ি সুনামগঞ্জ হয়ে ইনাতগঞ্জ ভায়া ঢাকা যাওয়া আসার পথ রন্ধও রয়েছে।

 

উপজেলা এলাকায় দিয়ে দেখা যায়, প্রায় সব রাস্তাই পানির নিচে! ফলে বন্ধি হয়ে পড়েছে কয়েক লক্ষাধীক মানুষ। এ বন্যার কারণে বন্ধ রয়েছে সকল শিক্ষা প্রতিষ্টান। বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে মানুষ না থাকায় অনেকেই তাদের ব্যবসা প্রতিষ্টান বন্ধ করে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। কুশিয়ারা নদীর ড্রাইগ নিয়ে পানি আসা বন্ধ না হওয়ায় গত ২ দিন ধরে পানি বন্ধি এলাকার প্রতিটি ঘর-বাড়িতে পান আর পানি। মানুষজন তাদের গরু-ছাগল নিয়ে নৌকাযোগে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে যাচ্ছে। আবার অনেকেরই টাকা ও নৌকার অভাবে তাদের গরু-ছাগল, ঘাঁস-মুরুগ পানিতে ডুকে মরছেও। ঐ এলাকার হাজারো লোককজন ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন শিক্ষকা প্রতিষ্টানে আশ্রয় নিচ্ছেন।

 

চলমান দেশের বন্যা পরিস্থিতিতে মানুষের সাথে ও ঘর-বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের সাপের সংর্স্পশ প্রবনতার সম্ভাবনা রয়েছে। চতুরদিকে থৈই থৈই পানির কারণে কিছু সংখ্যক বিষধর সাপও এখন উচু স্থানের সন্ধানে মানুষের ঘর-বাড়িতে প্রবেশের চেষ্টা করবে। আর যদি সাপের কামড় থেকে বাচঁতে চান তাহলে ঘুমানোর পূর্বে মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে। এ থেকে সবাই সর্তক থাকতে হবে। অপরদিকে, ঐ দুই ইউনিয়নের পানি এখন ঢাকা-সিলেট মহা সড়কের আউশকান্দি এলাকার দিকে ধীরে ধীরে প্রবাহিত হয়ে আউশকান্দি ও কুর্শি ইউনিয়নের দিকে পানি ডুকে পড়ছে।

 

 

এতে আউশকান্দি ইউনিয়নের আলমপুর, সৈয়দপুর, আজলপুর, পারকুল, বনগাও, মজলিসপুর, জলালপুর, মিঠাপুর, দৌলতপুর, বেতাপুর, আমকোনা, রায়পুর, দেওতৈল, মিনাজপুরের দিকে পানি আসতে শুরু করছে। এতে ঐ এলাকার মানুষও পড়েছেন নানান দুঃচিন্তায়। অনেকেই বিভিন্ন খালি বাসা বাড়ির ২তলা ৩তলা যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এর মধ্যে মধ্যবৃত্ত ও নিন্ম আয়ের মানুষ অনাহারে হা হা কার করছে। শ্রমজীবি মানুষরা কাজ কাম না করতে পারায় অনেকেই না খেয়ে দিন-রাত কাটাচ্ছেন। এমন অবস্থায় কে কার কাছে হাত পাতবে না নিজে ও নিজের পরিবারের সদস্যদের বাচাঁবে তা নিয়ে তারা আরো বড় দুঃচিন্তায় পড়েছেন।

 

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন বলেন, ডাইক দিয়ে পানি আসার সংবাদ পেয়ে আমরা ঘটনাস্থ পরিদর্শন করেছি। সেখানে কাজও চলছে। কুশিয়ার ডাইগ দিয়ে পানি আসার কারণে ইনাতগঞ্জ ,দীঘলবাক সহ আশপাশ গ্রামে পানি প্রবেশ করছে। এতে বন্যাত্র এলাকার সবাই নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে। ইতি মধ্যে আমরা বন্যার্থদের মধ্যে চাল ও বানমানুষকে প্রয়োজনিয় ত্রাণ, শুননো খাবার ও পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরন করেছি।


Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Follow us

আর্কাইভ

June 2022
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
27282930