ধর্মপাশায় বিনা অনুমতিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভবন ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ

প্রকাশিত: ৫:১৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ৩১, ২০২৩

ধর্মপাশায় বিনা অনুমতিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভবন ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ

 প্রতিনিধি/ধর্মপাশাঃঃ

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় বিনাঅনুমতিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নতুন ভবন ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদার মাইন উদ্দিনের বিরুদ্ধে। ঠিকাদার মাইন উদ্দিন উপজেলার ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নের ধর্মপাশা গ্রামের ফজর আলীর ছেলে। বৃহস্পতিবার দুপুরে খবর পেয়ে ভবনের ভাঙ্গার কাজ চলমান অবস্থায় সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীর নির্দেশে উপসহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলমের হস্তক্ষেপে ভবন ভাঙ্গার কাজ বন্ধ করা হয়।

 

 

জানা যায়, ধর্মপাশা উপজেলার জয়শ্রী ইউনিয়নের জয়শ্রী বাজারের মসজিদ সংলগ্ন স্থানে অনুমান ১০ বছর আগে প্রায় ত্রিশ লাখ টাকা ব্যায়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে একটি একতলা ভবন নির্মান করা হয়। চলতি অর্থ বছরে জয়শ্রী বাজারে গণশৌচাগার নির্মাণ করার কাজ পায় ঠিকাদার মাইন উদ্দিন। ভবনটি ভেঙে সরিয়ে নিয়ে একই জায়গায় গণশৌচাগার নির্মাণ করার পরিকল্পনা করা হয়। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে ঠিকাদার ভবনটি ভাঙ্গা শুরু করে। ছাদ সহ ভবনের অর্ধেক অংশ ভেঙে ফেলার পর খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম ভবন ভাঙ্গার কাজ বন্ধ করে দেন।

 

 

এ ব্যাপারে ঠিকাদার মাইন উদ্দিন বলেন, গণশৌচাগার নির্মাণ করার জন্য খালি জায়গার প্রয়োজন হওয়ায় ভবনটি ভাঙ্গা হচ্ছে। এটি পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঘর আমি জানতামনা। কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেয়া হয়নি তা স্বীকার করেছে ঠিকাদার। তিনি আরো বলেন, আমি ভেবেছি বাজারের ঘর তাই বজার উন্নয়ন করার জন্য এটি ভেঙ্গেছি। তবে এমপি সাহেব ও নেতৃবৃন্দ ভাঙাতে বলেছে।

 

 

 

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই ভবন ভাঙ্গার কাজ শুরু করে ঠিকাদার মাইন উদ্দিন। ভবন ভাঙ্গার কাজ বন্ধ করা হয়েছে। তবে খবর পাওয়ার আগেই অতিরিক্ত শ্রমিক দিয়ে দ্রুত ভবনের ছাদ ও দেয়ালসহ অনুমান অর্ধেক অংশ ভেঙে মালামাল সরিয়ে ফেলা হয়েছে। সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মামুন হাওলাদার বলেন, ভবনটি ভাঙ্গার জন্য কোন অনুমতি দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

আর্কাইভ

May 2024
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031