আচরণ পক্ষপাতমূলক হলে অবশ্যই ব্যবস্থা : সিইসি

প্রকাশিত: ২:২৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২৩

আচরণ পক্ষপাতমূলক হলে অবশ্যই ব্যবস্থা : সিইসি

লন্ডন বাংলা ডেস্কঃঃ

নির্বাচনের সময় কারো আচরণ যদি পক্ষপাতমূলক হয় তাহলে কমিশন অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেন, ‘এটা জনগণের আস্থার স্বার্থে, নির্বাচনের স্বার্থে। ভোটের পরিবেশ পর্যবেক্ষণ করছি আমরা।’ আজ সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

 

 

 

সিইসি বলেন, ‘কোনো জেলা প্রশাসকের আচরণ পক্ষপাতমূলক হওয়া কাম্য নয়। আমরা শুধু তফসিলের পরে নয়, এর আগেও পরিবেশ রক্ষায় কাজ করতে পারি। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেও যদি নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিতর্কিত আচরণ করেন, তাদের বিরুদ্ধে ইসি ব্যবস্থা নিতে পারে, এই সুযোগ ইসির আছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘আমরা চাই জেলা প্রশাসকরা নিরপেক্ষ আচরণ করুক। প্রধানমন্ত্রীসহ অন্য যারা ভোট চাচ্ছেন তারা ভোট চাইতে পারেন কি না তা নিয়ে এখনই কোনো মন্তব্য করব না। কারণ বিষয়টি কেউ নজরে আনেনি। তফসিল ঘোষণার পর কেউ আচরণবিধি লঙ্ঘন করছে কি না আমরা তখন দেখব।

 

 

ভোটের পরিবেশ নিয়ে কি আপনাদের কাজ করার সুযোগ রয়েছে—বিরোধীদলগুলো যে অভিযোগগুলো করছে; ভোটের পরিবেশ এখন নেই, গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘খুব জটিল প্রশ্ন, আমি উত্তর দিতে পারব না এই মুহূর্তে। ভোটের পরিবেশ আমরা নিশ্চয়ই পর্যবেক্ষণ করতে থাকব। এটাকে বলে প্রক্ষেপণ; নির্বাচন তিন মাস পরে হবে, ছয় মাস পরে হবে কিন্তু আমাদের পর্যবেক্ষণ বা প্রক্ষেপণ অবশ্যই সজাগ রাখতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘মনে করেন, আপনারা বলছেন, আমরা পারি না।

 

 

 

কালকে জেলা প্রশাসকরা একটা অ্যাসোসিয়েশন করলেন। ওরা সবাই ঢাকায় এসে বললেন এবার আমরা একটা বিশেষ দলকে অবশ্যই অবশ্যই ক্ষমতায় নিয়ে আসব। নির্বাচন আরও ছয় মাস পরে। আমরা কি নিশ্চুপ বসে থাকব? এখানে তাদের তো একটা নির্দেশনা দিতে হবে, না, এভাবে আপনারা আচরণ করতে পারেন না।’ কারণ জেলা প্রশাসক গুরুত্বপূর্ণ পদ, অনেক ক্ষেত্রে তাদের রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করতে হয়। পাশাপাশি ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নির্বাচনের সময় অতি অনিবার্য প্রয়োজনীয় আইন-শৃঙ্খলনার বিষয়টি তাকেই দেখতে হয়।

 

 

কাজেই কোনোভাবেই আমরা চাইব না যে, কোনো জেলা প্রশাসকের পক্ষপাতমূলক কোনো আচরণ প্রতিফলিত হোক,’ বলেন তিনি। বিরোধী পক্ষ একটি অভিযোগ করছে, এটা আইওয়াশ—গণমাধ্যমকর্মীরা দৃষ্টি আকর্ষণ করলে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এটার প্রশ্ন (জবাব) আমি দেবো না।’ জামালপুরের জেলা প্রশাসকের ক্ষেত্রে যেমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, সে রকম আরও উদ্যোগ নির্বাচন কমিশন নেবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যদি আমাদের কাছে এ রকম কিছু প্রতীয়মান হয় আমরা তখন নিশ্চয়ই এ ধরনের উদ্যোগ নেব।’

Spread the love