হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ: ৫ শতাধিক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

প্রকাশিত: ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৩১, ২০২০

হবিগঞ্জে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ: ৫ শতাধিক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার
১৬০ Views

প্রতিনিধি/ হবিগঞ্জঃঃ

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক লোক আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ২৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৫ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রন করে। এ সময় খড়ে আগুন লাগিয়ে দেয় ধাঙ্গাবাজরা। পরে বানিয়াচং ফায়ার সার্ভিস একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় পুলিশ সদস্য ও জনপ্রতিনিধিসহ অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের পর পুলিশ কয়েকজনকে আটক করেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, খাস জমি নিয়ে বানিয়াচং উপজেলা সদরের দোয়াখানী এবং প্রথমরেখ গ্রামবাসীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার বিকালে উভয় গ্রামের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষ হয়।  খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ মো. সেলিম, ওসি রঞ্জন কুমার সামন্তসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে ২৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ৫ রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

 

অপরদিকে, ঘটনার পরপরই পুলিশ বিভিন্ন গ্রামের পাড়ায় অভিযান চালিয়ে ৫ শতাধিক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে। তবে গ্রেফতার আতঙ্কে আহতরা বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছে।

 

বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ  (ওসি) রঞ্জন কুমার সামন্ত জানান, ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানসহ পুলিশের পদক্ষেপে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়।

 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ মো. সেলিম বলেন,  ঘটনার পর পূণরায় সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

Spread the love

Follow us

আর্কাইভ

February 2024
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
26272829