ঢাকা- সিলেট মহাসড়কে মোটর সাইকেল চোরচক্রের সেন্ডিকেট সক্রিয়

প্রকাশিত: ১২:০৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২০

ঢাকা- সিলেট মহাসড়কে মোটর সাইকেল চোরচক্রের সেন্ডিকেট সক্রিয়
Spread the love

৩১ Views

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃঃ

নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে আন্তঃজেলা চোরচক্র সক্রিয় হয়ে ওঠেছে। দিন- দুপুরে বিভিন্ন লোকজনের যানবাহন চুরি করে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাচার ও বিক্রি করছে চোরচক্রের একটি সিন্ডিকেট। এরই দ্বারাবাহিকতায় গত শুক্রবার সন্ধ্যায় এই চক্রের সদস্যরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আউশকান্দি শহীদ কিবরিয়া চত্তরস্থ ভাই ভাই অটো ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপে ৫টি মোটর সাইকেল বিক্রির জন্য তারা নিয়ে আসে।

 

 

এ সময় স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হলে তাদের সাথে কথা বার্তার এক পর্যায়ে ৩টি মোটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায় চোরচক্র। তবে, ২টি চোরাই মোটর সাইকেল আটক করে স্থানীয় জনতা। পরদিন আবার আউশকান্দি কিবরিয়া চত্বরস্থ আরেকটি ওয়ার্কসপ থেকে ডিসকভার একটি মোটর সাইকেল উদ্ধার করে স্থানীয় জনতা। পরে ইউপি সদস্য খালেদ আহমদ জজ এর কাছে হস্তান্তর করে তারা। এবং নবীগঞ্জ থানায় এ খবর দিলে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন, থানার অপারেশন (ওসি) আমিনুল ইসলাম। চোরচক্রের গডফাদারদের ধরতে পুলিশ ও স্থাণীয় চেয়ারম্যান মেম্বার মিলে চোরাইকৃত সাইকেল গুলো ইউপি সদস্য খালেদ আহমদ জজ এর জিম্মায় রাখেন।

 

জানা যায়, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় বাহুবল উপজেলার মোটর সাইকেল চোর চক্রের সদস্যরা ৫টি মোটর সাইকেল বিক্রির জন্য আউশকান্দি কিবরিয়া চত্ত্বরস্থ ভাই ভাই অটো ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপ এর মালিক কুর্শি গ্রামের মোঃ ছোটন আহমদ ও তার ভাই লিটনের নিকট বিক্রি করার জন্য হোন্ডা, পালসার, ডিসকবার, আর ওয়ান-৫ সহ প্রায় কয়েক লক্ষ টাকা মূল্যের মোটর সাইকেল নিয়ে আসে।

 

 

এ বিষয়টি স্থানীয় লোকজনের চোখে সন্দেহ হয়। এক পর্যায়ে মোটর সাইকেল চোর চক্রের সাথে স্থানীয় লোকজনের আপলাচারিতার এক পর্যায়ে সু- কৌশলে ৩টি মোটর সাইকেল যোগে পালিয়ে যায় তারা। এ সময় ২টি মোটর সাইকেল আটক করতে সক্ষম হন স্থাণীয় জনতা।

 

 

অপরদিকে, গত শনিবার সন্ধ্যায় আবারো ঢাকা- সিলেট মহা সড়কের শহীদ কিবরিয়া চত্বরস্থ আরেকটি ওয়ার্কসপ ব্যবসায়ী জাকারিয়ার দোকানে স্থানীয় লোকজন ডিসকভার একটি মোটর সাইকেল দেখে সন্দেহ হয় স্থানীয় লোকজনের।

 

 

এ খবর নবীগঞ্জ থানার ওসি অপারেশন আমিনুল ইসলামকে দিলে তিনি এই সাইকেল গুলোকে জব্ধ করেন। তবে, ওর্যাকসপ ব্যবসায়ী ছোটন মিয়া ও তার ভাই লিটন মিয়া, জাকারিয়া, এমরান, ঠিকাদার বদরুল, ট্রাক চালক ইব্রাহিম সহ আরো অনেেেকই জড়িত আছে মর্মে বিভিন্ন সূত্রে জানাযায়। এ ব্যাপারে যাহারা চোরাইকৃত মোটরসাইকেল আটক করেছেন, ঢাকা- সিলেট মহা সড়কের চেগার দেওতৈল গ্রামের আসাব আলী ও সিএনজি চালক সিনবাদ এর সাথে কথা হলে, তারা সাংবাদিকদের কাছে জানায় যে, এসব চোরচক্রের সাথে জড়িত রয়েছে দরবেশপুর গ্রামের ট্রাক চালক ইব্রাহিম মিয়া। তারা আরো জানায় যে, ইব্রাহিম অল্প দিনে ট্রাক, নোহা, বাড়ি গাড়ির মালিক কিভাবে হলো আমরা দুদক সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার মাধ্যমে জানতে চাই। তার ব্যাংকে এতো টাকা কোথায় থেকে আসলো? সে কয়েক দিন পর পর নতুন নতুন মোটরসাইকেল কোথায় পায়? এদিকে শ্রমিক নেতা ফারুক আহমদ বলেন, ঢাকা- সিলেট মহা সড়কের আউশকান্দি এলাকায় যত চুরি ডাকাতি, ইয়াবা ব্যবসা ও নারী কেলেংকারী হচ্ছে সব ইব্রাহিমের মাধ্যমেই হচ্ছে। তিনি সহ আরো অনেকেই ইব্রাহিমের অপকর্মের শাস্তি দাবী করেন। এ ছাড়াও মোটর সাইকেল চোর চক্রের সাথে আউশকান্দি এলাকার আরো কয়েকজন চোরের গভীর রয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন চোরচক্রের সদস্যরা গ্রেফতার করা হয়নি!

 

 

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য ও যুবলীগ নেতা খালেদ আহমদ জজ এর সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, আমাকে গত শুক্রবার আছাব মোবাইল ফোন করে বলে, চোরাইকৃত ২টি মোটরসাইকেল আটক করেছে তারা। এতে আমি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সাইকেল ২টি আমার জিম্মায় আনি। পরদিন আবার আরেকটি সাইকেল আটক করে তারা আমাকে ফোনে জানালে আমি তাদের কাছ থেকে আমার জিম্বায় এনে থানায় পুলিশের সহযোগীতায় আমার কাছে রাখি। এবং আরো সংগ্রহ করতে চেষ্টা করছি। আমি এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ- বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী ও নবীগঞ্জ ওসি অপারেশন আমিনুল ইসলাম সাহেবের সাথে আলাপ করেছি। তারা আমাকে যতেষ্ট পরিমান সহযোগীতা করার আশ্বাস দিয়েছেন।

 

 

এ ব্যাপারে আউশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মুহিবুর রহমান হারুন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ধন্যবাদ জানাই যারা এই চোরাইকৃত মোটরসাইকেল উদ্ধারে সহযোগীতা করেছেন। আউশকান্দি এলাকায় অহরহ মোটরসাইকেল ও গাড়ি চোরি হচ্ছে। এ পর্যন্ত আমাদের কাছে যাদের নাম এসেছে তারাই এই এলাকার চোরচক্রের গডফাদার। তাদেরকে আইনে আওতায় আনা প্রয়োজন। এতে আমার ইউনিয়নের পক্ষে থেকে যত ধরনের সহযোগীতা প্রয়োজন তা আমরা করবো।

 

 

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ওসি অপারেশন আমিনুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোটর সাইকেল উদ্ধার হয়েছে মর্মে স্বীকার করে বলেন, চোর, ডাকাত, মাদক ব্যবসায়ীরা যত বড়ই ক্ষমতাধর হোক না কেন আমরা তদন্ত সাপেক্ষে চোর চক্রের সদস্যদের গ্রেফতার করতে আমাদের পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


Spread the love

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

Follow us

আর্কাইভ

May 2022
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031